সুন্দরবন নিয়ে উদ্ভট সব আলোচনা

সুন্দরবন নিয়ে উদ্ভট সব আলোচনা
প্রকাশ : ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৬, ১৫:১০:৩০
সুন্দরবন নিয়ে উদ্ভট সব আলোচনা
এবনে গোলাম সামাদ
প্রিন্ট অ-অ+
আজকাল সুন্দরবন নিয়ে আমাদের দেশের পত্রপত্রিকায় অনেক উদ্ভট আলোচনা হতে দেখা যাচ্ছে। যেমন ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৬, আলোকিত বাংলাদেশ পত্রিকায় কোনো লেখক লিখেছেন, ‘বিদ্যুতের উৎপাদন বাড়াতে হবে। এটা কেউ অস্বীকার করতে পারবে না যদি আমরা দেশের উন্নয়ন চাই। প্রশ্ন হলো অন্যত্র। পরিবেশের ক্ষতি করে বিদ্যুৎকেন্দ্র কেন? বিশ্বের একমাত্র ম্যানগ্রোভ বন সুন্দরবন। ঠিক তার কাছেই তাপবিদ্যুৎকেন্দ্র করতে হবে কেন? কয়লা দিয়ে বিদ্যুৎ তৈরিতে যতটা না আপত্তি, তার চেয়ে বেশি আপত্তি সুন্দরবনের কাছে, সে জন্য। সুন্দরবন আমাদের রক্ষাকবচ। তাই এর ক্ষতি হোক বা হতে পারে এমন কিছু কেউই চাই না।...’
 
আমার কাছে লেখাটা পড়ে মনে হলো, লেখক উদ্ভিদবিদ্যার সাথে মোটেও পরিচিত নন। পরিচিত হলে তিনি কখনোই বলতেন না যে, সুন্দরবন বিশ্বের একমাত্র ম্যানগ্রোভ। কেননা, বিশ্বের আরো অনেক জায়গায় ম্যানগ্রোভ (ম্যাংগ্রোভ) বন আছে। যেমন, দক্ষিণ আমেরিকার আমাজন নদীর মোহনায়; পশ্চিম আফ্রিকায় নাইজার নদীর ব-দ্বীপসমূহে; ইন্দোনেশিয়ার সুমাত্রা ও বর্মীয় দ্বীপের পূর্বাঞ্চলে। তাই লেখক যা বলছেন, তা মোটেও বস্তুনিষ্ঠ নয়। সুন্দরবন ছাড়াও ম্যানগ্রোভ বন অন্য আরো জায়গায় আছে।
 
ইংরেজি ভাষায় ম্যাংগ্রোভ শব্দটার উদ্ভব ঠিক কিভাবে হতে পেরেছে তা জানা যায় না। তবে ম্যাংগ্রোভ বলতে প্রধানত বোঝায় Rhizophoraceae পরিবারভুক্ত গাছকে। বিশেষ করে Rhizophora mangle Lin গাছকে। গাছটা হয় সোলেমান দ্বীপে। এখন ম্যাংগ্রোভ বলতে কেবল রাইজোফরেসি পরিবারভুক্ত উদ্ভিদকে বোঝায় না। ম্যাংগ্রোভ বলতে বোঝায় এমন গাছকে, যা লোনাপানিতে হতে পারে, যাদের শিকড়ে শ্বাসমূল থাকে এবং যাদের দেহে ঠেসমূল থাকে। ঠেসমূল এদের কাদামাটিতে দাঁড়িয়ে থাকতে সাহায্য করে। ঠেসমূল জোয়ারের সময় কাদামাটিকে আটকায়। ফলে ম্যাংগ্রোভ অঞ্চলে কাদামাটি সহজেই জমতে পারে এবং ম্যাংগ্রোভ বন সমুদ্রের দিকে এগিয়ে যায়। বাড়ে এর আয়তন।
 
ম্যাংগ্রোভ গাছ হয় ঝোপজাতীয়। এসব হলো ম্যাংগ্রোভ গাছের কতগুলো সাধারণ বিশেষতা। সুন্দরবনে রাইজোফরেসি পরিবারভুক্ত গাছের বিশেষ দৃষ্টান্ত হলো গরান। গরান হলো বড় ঝোপজাতীয় গাছ। ব্রিটিশ উদ্ভিদবিদ David Prain-এর মতে, সুন্দরবনের নাম হয়েছে সুঁদরী গাছের (Heritiera minor, Roxb) নাম থেকে। সুঁদরী গাছ Sterculiaceae পরিবারভুক্ত, Rhizophoraceae পরিবারভুক্ত নয়। তবে সুঁদরী গাছেরও হয় শ্বাসমূল। তাই একেও বলা চলে ম্যাংগ্রোভ উদ্ভিদ। তবে সুঁদরী গাছ গরান গাছের মতো অত বেশি লোনা পানিতে হতে পারে না। সুঁদরী গাছ হয় সমুদ্র সৈকত থেকে বেশ কিছুটা দূরে, যেখানে তেজকটালের সময় সমুদ্রের পানি গেলেও অন্য জোয়ারের সময় (মরাকটাল) যায় না।
 
সুন্দরবনের সবটাকেই ম্যাংগ্রোভ বন বলা যায় না। সুন্দরবনের উত্তর ভাগে হতে দেখা যায় মিঠা পানির গাছপালা। অর্থাৎ সুন্দরবনের সমুদ্রের দিকে হয় গরান, মধ্য ভাগে সুঁদরী আর তার উত্তর ভাগে হতে দেখা যায় মিঠাপানির গাছপালা। পুরো সুন্দরবনকে তাই উদ্ভিদবিদ্যার দিক থেকে ম্যাংগ্রোভ বলা যুক্তিযুক্ত হয় না। কিন্তু আমাদের দেশের পরিবেশবাদীরা গোটা সুন্দরবনকেই বলতে চাচ্ছেন ম্যাংগ্রোভ। এটা একটা বড় রকমেরই ভুল।
 
কেবল আমাদের দেশের পরিবেশবাদীরাই নন, UNESCO বিশেষজ্ঞরাও একে ঢালাওভাবে উল্লেখ করছেন ম্যাংগ্রোভ হিসেবে। জানি না কেন। কৃষি, বন, মৎস্য বিভাগ সম্পর্কে কথা বলার প্রধান অধিকার হলো FAO-এর। সুন্দরবন সম্পর্কে FAO বিশেষজ্ঞদের অভিমত সম্পর্কে আমরা কিছু অবগত নই।
 
বাগেরহাট জেলার রামপালে তাপবিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপন করা নিয়ে অনেক হইচই হচ্ছে। রামপাল জায়গাটা সম্পর্কে আমার ভালো ধারণা নেই। আমি একবার বাগেরহাটে গিয়েছিলাম ষাটগম্বুজ মসজিদ দেখতে। ষাটগম্বুজ মসজিদ ঢাকায় বায়তুল মোকাররম মসজিদ হওয়ার আগে ছিল বাংলাদেশের সর্ববৃহৎ মসজিদ। খ্রিষ্টীয় পঞ্চদশ শতাব্দীর মধ্যভাগে উলুগ-খাঁ-জাহান নামে একজন ধর্মপ্রচারক এই বিরাট মসজিদটি নির্মাণ করান।
 
বাগেরহাট নামটি বাংলা নয়। ‘বাগ’শব্দটি হলো ফারসি ভাষার। বাগ মানে জঙ্গল নয়; মানুষের হাতে গড়া উদ্যান। এখানে উদ্যান রচনা করেছিলেন উলুগ-খাঁ-জাহান। সুন্দরবন কেটেই তিনি গড়েছিলেন বাগেরহাট। তখন যদি পরিবেশবাদীরা থাকতেন, তবে নিশ্চয় তারা প্রতিবাদ করতেন, বন কেটে উদ্যান তৈরির।
 
আমি দক্ষিণবঙ্গে থাকি না, থাকি রাজশাহীতে। রাজশাহীর পদ্মাপাড়ের বাসিন্দা। এখান থেকে ফারাক্কা ব্যারাজ খুব দূরে নয়। ফারাক্কা ব্যারাজ ও তার সংলগ্ন অঞ্চলে বিদ্যুৎ সরবরাহের জন্য মালদহের খেজুরিয়া ঘাট নামক স্থানে স্থাপন করা হয়েছে বিরাট তাপবিদ্যুৎকেন্দ্র। যেখানে প্রতিদিন হাজার হাজার টন পাথর-কয়লা পুড়িয়ে উৎপাদন করা হচ্ছে বিদ্যুৎ। এই কয়লা পোড়াবার কারণে উৎপন্ন হচ্ছে কার্বনডাই-অক্সাইড, সালফারডাই অক্সাইড প্রভৃতি গ্যাস, যা পশ্চিম বাংলা থেকে বাতাসে ভেসে আসে চাঁপাইনবাবগঞ্জ ও রাজশাহীতে। কিন্তু আমাদের দেশের পরিবেশবাদীদের এ নিয়ে উদ্বিগ্ন হতে দেখি না। তাদের কেবলই উদ্বেগ প্রকাশ করতে দেখছি রামপাল তাপবিদ্যুৎকেন্দ্র নিয়ে। জানি না কেন।
 
আমাদের প্রধান সমস্যা, খাদ্যসমস্যা। একটি দেশে খাদ্যসমস্যা দূর করতে বাড়াতে হয় খাদ্য উৎপাদন। খাদ্য উৎপাদন দুইভাবে বাড়ানো চলে। নতুন জমি আবাদ করে এবং যেসব জমিতে আবাদ হচ্ছে, সেসব জমিতে উন্নত কৃষিকৌশল প্রয়োগ করে। আমাদের দেশে নতুন জমি আবাদ করতে হলে বনভূমি কেটে ক্ষেত করা ছাড়া উপায় নেই।
 
১৯৩১ সালে ব্রিটিশ শাসনামলে যে আদমশুমারি হয়, তার রিপোর্টে বলা হয় সুন্দরবন অঞ্চলে বন কেটে আবাদ করার কথা। এ সময়ের বিশেষজ্ঞরা বলেন, বাংলাদেশে জনসংখ্যার হার দ্রুত বাড়ছে, কিন্তু এতে উদ্বিগ্ন হওয়ার কোনো কারণ নেই। কেননা, দক্ষিণবঙ্গে সমুদ্রে নদীবাহিত মৃত্তিকা জমে চর পড়ছে। সুন্দরবন যাচ্ছে দক্ষিণে সরে। সুন্দরবনের উত্তর ভাগে বন কেটে পরিষ্কার করে আবাদি জমি সৃষ্টি করা সম্ভবপর। যে জমিতে চাষ করে হতে পারে খাদ্যসমস্যার এবং আবাসন সমস্যার লাঘব।
 
কিন্তু এখন বলা হচ্ছে, সুন্দরবনের গাছপালা কেটে ফসলের ক্ষেত করা চলবে না। কেননা, এতে ক্ষতি হবে জীববৈচিত্র্যের। যেন মানুষের খেয়েপরে বেঁচে থাকার চেয়ে জীববৈচিত্র্য রক্ষা হলো অধিক মূল্যবান। নিউ ইয়র্ক শহরে মিছিল হচ্ছে সুন্দরবন নিয়ে। কিন্তু ওই শহরে যদি সুন্দরবনের বাঘ এবং নদীতে সুন্দরবনের কুমির এবং আশপাশের অঞ্চলে সুন্দরবনের বিষধর সাপ নিয়ে ছেড়ে দেয়ার প্রস্তাব ওঠে, তবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র তাতে মোটেও রাজি হবে বলে মনে করা যায় না।
 
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে রক্তচোষা বাদুড়, ভামপায়ার আছে। র্যাটেল সাপের মতো বিষধর সাপ আছে। কিন্তু মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এদের সংরক্ষণের জন্য চেষ্টা করছেন বলে আমার জানা নেই। একসময় সারা ইউরোপে ছিল হাতি। আদিম মানুষ ফ্রান্সের গিরি-গুহায় এঁকেছে ছবি। এসব ছবির বয়স কম করে হাজার বিশেক বছর হবে। কিন্তু এখন যদি ফ্রান্সে আমাদের দেশ থেকে বন্যহাতি নিয়ে ছেড়ে দেয়ার প্রস্তাব রাখা যায়, তবে ইউনেস্কো নিশ্চয় সেটাকে সমর্থন জানাবে না।
 
ইউনেস্কোর কথা শুনে মনে হচ্ছে, বাংলাদেশকে যেন হতে হবে বিশ্বের চিড়িয়াখানা। জীবজন্তু বিলুপ্ত হবার জন্য ইউনেস্কো বিশেষজ্ঞরা যতটা উদ্বিগ্ন, গাছপালা বিলুপ্তির জন্য মোটেও ততটা নন। বন্যগাছের কথা ছেড়েই দিলাম, একসময় বাংলাদেশে নাকি আবাদ করা হতো প্রায় ৪০০০ রকমের ধান। এগুলো এখন আর আবাদ করা হয় না। এদের বংশ ধরে রাখবারও কোনো চেষ্টা করা হয়নি। যদিও এসব ধান থেকে ঝাড়াই, বাছাই ও শংকরায়ন ঘটিয়ে উচ্চফলনশীল ও গুণসম্পন্ন (সুঘ্রাণ) ধানের উদ্ভব করা যেতে পারত।
 
এখন কিছু তাত্ত্বিক কথা আলোচনা করা যেতে পারে। ইকোলজি বা পরিবেশবিদ্যা বলতে বোঝায়, জীবদের সাথে তাদের পরিবেশের সম্পর্ক নিয়ে আলোচনা। অন্য জীবের ক্ষেত্রে পরিবেশবিদ্যার গুরুত্ব যতটা, মানুষের ক্ষেত্রে তা নয়। শীতের দেশে লোমশ প্রাণীরা বাঁচে, অন্য প্রাণীরা বাঁচে না। শীতপ্রধান দেশে তাই দেখা যায় লোমশ প্রাণী। কিন্তু শীতপ্রধান দেশে মানুষের দেহে অতিরিক্ত লোম গজায়নি। তারা ভেড়ার লোম দিয়ে জামা বানিয়ে তা পরিধান করে শীত নিবারণ করেছে। আগুন জ্বালিয়ে করেছে ঘর গরম। মানুষের জীবনে গড়ে উঠেছে, যাকে বলে একটা অর্থনৈতিক জীবন। মানুষের জীবনে পরিবেশবিদ্যার চেয়ে অর্থবিদ্যার (Economics) আলোচনা হয়ে উঠেছে অনেক গুরুত্ববহ। মানুষ বন পুড়িয়ে, গাছ কেটে বের করেছে ফসলি জমি। সৃষ্টি করেছে সভ্যতা। বাংলাদেশের ইতিহাসে আমরা দেখি একসময় এ দেশের অনেক জায়গায় ছিল ঘন বন। রাল্ফ ফিচ (Ralph Fitch, 1583-91), ফনসেকা (Fonseca, 1599) প্রমুখ বিদেশী পর্যটকের বিবরণ থেকে জানা যায়, পূর্ববঙ্গে বেশির ভাগ জায়গায় ছিল ব্যাঘ্র ও সর্পবহুল ঘন বন। আমাদের পূর্বপুরুষ বন পরিষ্কার করে করেছেন ক্ষেতখামার। গড়ে তুলেছেন সমৃদ্ধ কৃষি অর্থনীতি (দ্রষ্টব্য : নীহাররঞ্জন রায়। বাংলার নদনদী। বিশ্বভারতী গ্রন্থালয়, কলকাতা, আষাঢ় ১৩৫৪ অব্দ। পৃষ্ঠা ৩৫-৩৭)।গড়েছে সভ্যতার গোড়াপত্তন।
 
অবশ্য মানবজীবনে বনজসম্পদেরও প্রয়োজন আছে। সে কথা অস্বীকার করা যায় না। বন থেকে মানুষ কাঠ সংগ্রহ করে বানিয়েছে বাড়িঘর। কাঠ ব্যবহার করেছে জ্বালানি হিসেবে। মানুষই একমাত্র জীব, যে খাদ্যবস্তু রান্না করে আহার করে থাকে। রবীন্দ্রনাথের ভাষায় বলা যায়-
নোনার স্থানে থাকবে নোনা,
মিঠের স্থানে মিষ্টি-
সাহিত্যে বা পাকশালাতে
এরেই বলে কৃষ্টি।
 
মানুষের অর্থনৈতিক উদ্যোগ হয়েছে সংস্কৃতিচর্চার বিশেষ ভিত্তি। কিছু পিঁপড়ে এবং উইপোকা তাদের বাসায় একরকম ছত্রাক এনে লাগায় এবং তাদের আহার্য হিসেবে গ্রহণ করে। কিছু পিঁপড়ে আছে যারা এক রকম জাব পতঙ্গকে নিজেদের বাসায় এনে রাখে এবং ওই জাব পোকাদের দেহ থেকে নির্গত মিষ্টি রস পান করে। এদের বলা হয় ‘পিঁপড়েদের গরু’। জাগ পতঙ্গ পোষা এসব কর্মকে সচেতন কৃষি ও পশুপালন বলে ধরা যায় না।
 
সচেতনভাবে কৃষিকাজ একমাত্র মানুষের ক্ষেত্রেই হতে দেখা যায়। পরিবেশবাদীরা মানুষকে দেখতে চাচ্ছেন কেবল পরিবেশের মাধ্যমেই নিয়ন্ত্রিত হিসেবে। কিন্তু মানুষ কেবল তার পরিবেশ দিয়ে নিয়ন্ত্রিত হয় না। সে তার পরিবেশকে নিজের উপযোগী করে গড়ে নিয়ে জীবন ধারণ করতে চায়। এখানেই অন্য প্রাণীর সাথে তার আছে বিরাট মৌলিক ব্যবধান।
 
লেখক : নৃবিজ্ঞানী ও সমাজচিন্তক। অবসরপ্রাপ্ত প্রফেসর, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়
 
বিবার্তা/হুমায়ুন/মৌসুমী
 
 
সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (২য় তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১১৯২১৫১১১৫

Email: bbartanational@gmail.com, info@bbarta24.net

© 2017 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com