সড়ক সংস্কার না হওয়ায় দুর্ভোগ চরমে

সড়ক সংস্কার না হওয়ায় দুর্ভোগ চরমে
প্রকাশ : ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৬, ১০:৩১:১৩
সড়ক সংস্কার না হওয়ায় দুর্ভোগ চরমে
সুমন মুখার্জী, নীলফামারী
প্রিন্ট অ-অ+
‘খালি ছবি তুলি কী করিবেন বাহে। হামার এই ঠেকার পাকা রাস্তাগুলা ভালা নাই। ভাঙ্গিচুরি শেষ হয়া যায়ছে। হামরাতো রাস্তা মেরামত সংস্কার করিবার দাবি করি, আন্দোলন করিবার পারি না। হামাকতো ধমক দিয়া লাইফসাপোর্টে রাখি দিছে। কিছু কইবার গেইলে মরণ হইব।গত তিনবছর ধরি হামার এইঠে কোন পাকা রাস্তা সংস্কার কাহো করে না। আপনেরা সাংবাদিক। বেশি করি না লেকতে পাইলে রাস্তা ঠিক অইবে না।’
 
কথাগুলো বলছিলেন ডিমলা উপজেলার বাসিন্দা আলিম উদ্দিন। 
 
জানা যায়, ডিমলা উপজেলার বিভিন্ন সড়কের মধ্যে ৪০ কিলোমিটার রাস্তা চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়েছে। দীর্ঘ তিন বছর ধরে সংস্কার না হওয়ায় অল্প বৃষ্টিতে রাস্তায় জমছে পানি, খানাখন্দে ভরা চলাচলের অনুপযোগী রাস্তা নিয়ে বিপাকে পড়েছে এলাকাবাসী। তিন বছর আগে সড়কগুলো সংস্কার করা হয়েছিল। কিন্তু পাথর ভর্তি ট্রাক আর ট্রলি চলাচলে সড়কগুলো ভেঙ্গে খানাখন্দকে পরিণত হয়েছে।
 
ডিমলা-সুটিবাড়ী ডালিয়া সড়কের ১৫ কিলোমিটার, ডিমলা থেকে কলোনি বাজার পর্যন্ত ১২ কিলোমিটার, ডিমলা সদরের শহীদ মিনার থেকে ডোমার সড়কের ৫ কিলোমিটার, খালিশাচাপানি পাউবোর ক্যানেল হয়ে তালতলা মোড় পর্যন্ত ৩ কিলোমিটার, ঝুনাগাছ চাপানির পূর্বদিকে গুচ্ছগ্রাম পর্যন্ত ৩ কিলোমিটার রাস্তা চলাচলের সম্পূর্ণ অনুপযোগী হয়ে পড়েছে।
 
স্থানীয় বাসিন্দা মোতালেব হোসেন জানান, ডিমলা থেকে টুনিরহাট হয়ে কলোনির দূরত্ব ১২ কিলোমিটার হলেও মোটরসাইকেলে যেতে এক ঘণ্টার বেশি সময় লাগে। গোটা রাস্তায় বড় বড় গর্তের কারণে প্রতিনিয়ত দুর্ঘটনা ঘটছে বলেও জানান তিনি।
 
এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, ডিমলা উপজেলা শহর থেকে সুটিবাড়ি-ছোটখাতা হয়ে ডালিয়া পর্যন্ত প্রায় ১৩ কিলোমিটার অতিক্রম করে স্থানীয় বাসিন্দাদের রংপুর, লালমনিরহাট, হাতিবান্ধা, পাটগ্রাম ও বুড়িমারীতে যাতায়াত করতে হয়। এসব সড়ক দিয়ে অসংখ্য যাত্রীবাহী বাস, শতাধিক মালবাহী ট্রাক, মিনি ট্রাক, মাইক্রোবাস ও অটোরিক্সা চলাচল করে।
 
ডালিয়া বাজারের আবুল কাশেম (৩৫) জানান, ভাঙ্গা রাস্তার কারণে প্রায়ই ট্রাকের যন্ত্রাংশ নষ্ট হচ্ছে, চাকা ফেঁসে যাচ্ছে, আবার কখনও মালামালসহ উল্টে যাচ্ছে। এ কারণে ওই পথে ট্রাক এখন ভাড়া দিতে চায় না। 
 
ট্রাকচালক মিলন ইসলাম (৪০) বলেন, রাস্তার বেহাল অবস্থার কারণে আতঙ্কে থাকি। নানারকম ঝক্কি ঝামেলাতো রয়েছেই। তার ওপর একবার রাস্তায় ট্রাক ফেঁসে গেলে ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা ধরা খেতে হয়।
 
ডিমলা উপজেলা প্রকৌশলী আবু জাফর মোহাম্মদ সালেহ জানান, ডিমলা সুটিবাড়ি ১২ কিলোমিটার সড়ক সংস্কারের জন্য চারটি গ্রুপে টেন্ডার হয়েছে। আর বাকি সড়কগুলোর সংস্কারে টেন্ডার প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।
 
বিবার্তা/সুমন/জেমি/জিয়া
 
সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (২য় তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১১৯২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2019 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com