‘অতীতের হত্যাকারীরাই দীপন হত্যায় জড়িত’

‘অতীতের হত্যাকারীরাই দীপন হত্যায় জড়িত’
প্রকাশ : ২০ নভেম্বর ২০১৫, ১৪:৪৭:০৭
‘অতীতের হত্যাকারীরাই দীপন হত্যায় জড়িত’
কামরুজ্জামান রেজা
প্রিন্ট অ-অ+
যারা অতীতের হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত তারাই আসলে বর্তমানে দীপন হত্যাসহ সকল হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত।এটা নিয়ে আমাদের বোধ-বুদ্ধি সম্পন্ন মানুষের চিন্তার কোনো কারণ নেই। আমরা যারা সংবেদনশীল সাধারণ মানুষ তাদের কাছে সুস্পষ্ট যে, অতীতের হত্যাকারীরাই এ হত্যার(দীপন) সঙ্গে জড়িত। এর বাহিরে আমরা আর কিছু ভাবতে পারছি না বলে মত প্রকাশ করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের অধ্যাপক ড. রফিকউল্লাহ খান।
 
দেশে একের পর এক হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটছে। ঘরে-বাইরে এখন কোনো মানুষই নিরাপদ নয়। বাংলাদেশে অবস্থিত দেশি-বিদেশি নাগরিকরাও এখন আতংকিত। আর অতি সম্প্রতি জাগৃতি প্রকাশনীর কর্ণধার নিহত লেখক অভিজিৎ রায়ের প্রকাশক ফায়সল আরেফিন দীপনকে যে ভাবে হত্যা করা হলো সেটি নিয়ে বিবার্তা২৪.নেটের বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিবেদকের সঙ্গে আলাপকালে অধ্যাপক ড. রফিকউল্লাহ খান একথা বলেন।
 
তিনি বলেন, অতীতের হত্যাকাণ্ডের সুষ্ঠুবিচার না হওয়ায় এ হত্যাকাণ্ড ঘটছে। এবং আগের হত্যার একটারও প্রত্যাশা অনুযায়ী বিচার হয়নি। এটা দীর্ঘ হত্যাকাণ্ডের ধারাবাহিকতারই অংশ।
 
ড. রফিকউল্লাহ বলেন, যাদের এই হত্যাকাণ্ডে ব্যবহার করা হচ্ছে, তাদের একটা-দুইটা কারণ দেখিয়ে বলা হয় ওই ব্লগার নাস্তিক। ওকে হত্যা করতে বলা হচ্ছে। এখানে হত্যাকারীদের অপরাধ কম, কিন্ত এদের যারা লেলিয়ে দিচ্ছে তাদের ধরতে পুলিশ প্রশাসন ব্যর্থ হচ্ছে বলে জানান তিনি।
 
এসকল হত্যাকাণ্ডের পিছনে কোনো কু-চক্রী মহলের হাত আছে কিনা জানতে চাওয়া হলে অধ্যাপক বলেন, যারা যুদ্ধাপরাধীদের বিচার চায় না, তাদেরই কোনো একটা অংশ আজ এ সকল কাজগুলো করছে বলে মনে করেন তিনি।
 
দীপন হত্যাকাণ্ড আমাকে প্রবলভাবে আলোড়িত করেছে। হত্যাকাণ্ডের যে ধারাবাহিকতা, যে মোটিভ তা ধরে বলা যায়, বিগত হত্যাকাণ্ডের হত্যাকারীরাই এ সঙ্গে জড়িত। যেটা রাজিব হায়দার থেকে শুরু হয়েছিলো।কিন্ত রাজিব হায়দার হত্যাকাণ্ড হয়েছিলো দূরবর্তীতে, আর পরের গুলো হয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় বলেন, ড. রফিকউল্লাহ।
 
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের সংখ্যাতিরিক্ত অধ্যাপক আবুল কাসেম ফজলুল হক নিহত দীপনের বাবা। দীপনের বাবা বলেছেন, রাজনৈতিক হানাহানি বন্ধ না হলে দীপন হত্যার মতো ঘটনা থামবে না। এই বক্তব্যের সঙ্গে আপনার (ড. রফিকউল্লাহ) বক্তব্য কি জানতে চাইলে তিনি বলেন, এটি আংশিক সত্য। কিন্ত হত্যাকাণ্ডটি রাজনীতি হতে পারে না। হত্যাকাণ্ড তো হত্যাকাণ্ড। তবে এটা রাজনীতি না, রাজনীতির অংশও না।
 
নিহত দীপনের বাবা বলেছেন- এ দেশের সুবিচার বলে কিছু নেই। এই প্রশ্নটি আপনি কিভাবে দেখছেন? ড. রফিকউল্লাহ বলেন, দেশে সুবিচার একদম নেই এটা সত্য নয়। সুবিচার আছে বলেই দুদিন আগে রাজন, রাকিব হত্যার বিচার সম্পন্ন হয়েছে।
 
তবে ক্ষেত্র বিশেষে বিচার কার্য সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন হচ্ছে না। প্রতিটি হত্যাকণ্ডের মোটিভ আলাদা, আর হত্যাকারীদের শনাক্ত না করতে পারলে বিচার সম্পন্ন কষ্টদায়ক হয়ে পড়ে।
 
তিনি আরো বলেন, রাজিব, রাকিব হত্যাকারীদের শনাক্ত করা সম্ভব হয়েছে বলেই, এ দুটি বিচার খুব দ্রুত সম্পন্ন হয়েছে। 
 
এক একটা হত্যার তদন্ত এক এক জায়গায় এসে থেমে যাচ্ছে। এসব হত্যার সুষ্ঠু তদন্ত করে বিচারের আওতায় আনতে পারলে হত্যাকাণ্ড থেমে যাবে বলে আশাবাদী এ অধ্যাপক।       
সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (২য় তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১১৯২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2019 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com