দেবী সরস্বতী : বিদ্যা-জ্ঞান ও শুভ্রতার বিশুদ্ধ প্রতীক

দেবী সরস্বতী : বিদ্যা-জ্ঞান ও শুভ্রতার বিশুদ্ধ প্রতীক
প্রকাশ : ০৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৬, ২১:৪৯:২৩
দেবী সরস্বতী : বিদ্যা-জ্ঞান ও শুভ্রতার বিশুদ্ধ প্রতীক
মানিক লাল ঘোষ
প্রিন্ট অ-অ+
বিদ্যার দেবী সরস্বতী। জ্ঞানের দেবী সরস্বতী। সরস্বতী পূজা তাই হিন্দু সম্প্রদায়ের বিদ্যার্থীদের কাছে বেশ গুরুত্বপূর্ণ। বিশ্ববিদ্যালয়, কলেজ, স্কুলসহ বিভিন্ন ধরনের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এবং ব্যক্তিগত পর্যায়ে পারিবারিকভাবেও এ পূজা অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে। কালপরিক্রমায় এ পূজা ব্যক্তি ও পরিবারের গন্ডি উতরিয়ে এখন বাঙালি হিন্দুদের সর্বস্তরের মানুষকে নিয়ে ক্রমশঃ এক সার্বজনীন ধর্মীয় অনুষ্ঠানের রূপ লাভ করেছে।
 
সরস্বতী পূজা জ্ঞানের দেবীর আরাধনা হলেও এর পিছনে রয়েছে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের ভগবৎ আরাধনার এক বিশেষ পদ্ধতি। জ্ঞানদায়িনী বিদ্যাদেবী সরস্বতী শ্বেত-শুভ্র বসনা। তার এক হাতে বীণা অন্য হাতে বেদপুস্তক অর্থাৎ বীণাপাণিতে যার তিনি বীণাপাণি- সরস্বতী, আর এ থেকেই বাণী অর্চনার প্রচলন। তবে প্রথম কবে এ পূজার প্রচলন হয় তা বলা মুশকিল। 
 
হিন্দু ধর্মের বিভিন্ন গ্রন্থে সরস্বতীর রূপ- মাহাত্ম্য বিভিন্নভাবে বর্ণিত হয়েছে। বেদ, পুরাণ ও বিভিন্ন শাস্ত্রীয় গ্রন্থে সরস্বতীর নানান রূপ ও প্রকৃতির বর্ণনা পাওয়া যায়। 
 
ঋগ দেব বাগদেবী সর্বনিয়ন্তা ও সর্বনির্মাতা পরমেশ্বরী রূপে বর্ণিত হয়েছেন। ব্রক্ষ্ম বৈবর্ত পুরানে সরস্বতী দেবী সম্পর্কে বলা হয়েছে- যিনি পরমাত্মার বাক্য, বুদ্ধি, বিদ্যা ও জ্ঞানের অধিষ্ঠাত্রী দেবতা এবং সর্ববিদ্যা স্বরূপা, তিনিই দেবী সরস্বতী। তিনি শ্বেত পদ্মসন্নিত অঙ্গজ্যোতিসম্পনা। মার্কেন্ডেয় পুরাণে এই দেবী বীণাপাণি, মহাবিদ্যা, দুর্গা। এই দুর্গার কন্যারূপে সরস্বতীর পরিচয় পাওয়া যায়। 
 
বিভিন্ন ধর্মগ্রন্থে সরস্বতীর মাহাত্ম্য যেভাবেই বা যে রূপেই তুলে ধরা হোক না কেন, আমাদের বাঙালি হিন্দু সংস্কৃতিতে সরস্বতীকে বিদ্যার দেবী হিসাবে পূজা করা হয়ে থাকে। হিন্দু সম্প্রদায় সরস্বতীর যে মূর্তি পূজা করে সেই সরস্বতীর রূপ দ্বিভূজা, শ্বেত বরণী, শ্বেতাম্বরা, শ্বেতদল বাসিনী, শ্বেত হংসবিহারিণী ও বীণা পুস্তক- কমলধারিণী। 
 
বছর পরিক্রমায় হিন্দু সম্প্রদায়ের কাছে আবার ফিরে এসেছে মাঘী শুক্লা পঞ্চমী তিথি। প্রতিবছর এই দিনটি হিন্দু সম্প্রদায়ের শিক্ষার্থীদের কাছে এক ব্যতিক্রমধর্মী আবেদন সৃষ্টি করে। এই দিনে তিথি অনুযায়ী বিদ্যার দেবী সরস্বতীকে পূজা করে হয়ে থাকে। 
 
এদিন সূর্যোদয়ের সঙ্গে সঙ্গে সবিতা-দুহিতা সরস্বতীর স্তুতির জন্য বিদ্যার্থী, ছাত্রছাত্রীরা এবং শিক্ষা-সাহিত্য ও সংস্কৃতির সাথে যারা জড়িত অর্থাৎ এককথায় সৃজনশীল কর্মকাণ্ডের সাথে জড়িত হিন্দু সম্প্রদায়ের কবি, লেখক, ছড়াকার, ঔপন্যাসিক, গীতিকার, আবৃত্তিকার, নাট্যাভিনেতা, সংগীত শিল্পী শ্বেত-শুভ্র বসন পরিহিতা দেবী সরস্বতীর পদ্মচরণে অর্পণ করেন পুষ্পাঞ্জলি। 
 
সরস্বতী বিদ্যার দেবী। বিদ্যা মানুষকে আলোকিত করে, মনুষত্বের চোখ খুলে দেয়। কিন্তু যতই দিন যাচ্ছে আমাদের মনুষত্বের চোখ বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। আক্ষরিক অর্থে কিংবা প্রাতিষ্ঠানিকভাবে প্রতিনিয়ত আমরা উচ্চশিক্ষিত হচ্ছি বটে কিন্তু সুশিক্ষিত হচ্ছি কই?
 
তাই দেশের সার্বিক পরিস্থিতিতে জ্ঞানের দেবী, বিদ্যার দেবী সরস্বতীর কাছে আমাদের কামনা সত্য, সুন্দর ও পবিত্রতার পথে তিনি আমাদের পরিচালিত করুক, কুসংস্কার, অন্ধ বিশ্বাস, ধর্মীয় সংকীর্ণতার উর্ধ্বে উঠে এক অসাম্প্রদায়িক ভ্রাতৃত্ববোধে যেনো আমরা আবদ্ধ হয়ে হাজার বছরের ঐতিহ্য বাঙালি সংস্কৃতিকে ধরে আমাদের দেশকে সামনের দিকে এগিয়ে নিতে পারি। দেবী সরস্বতীর আশীর্বাদ ও কল্যাণে দূর হোক সব অন্ধকার, জ্ঞানের আলোয় আলোকিত বিশ্ব হোক শুভ্রময়। 
 
লেখক : সাংবাদিক ও কলামিষ্ট। সহ-সম্পাদক, বাংলাদেশ হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রীষ্টান ঐক্য পরিষদ। সিনিয়র রিপোর্টার, মাইটিভি।
মোবাইল : ০১৭১৪-৯০২০১২
 
বিবার্তা/মহসিন
সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (২য় তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১১৯২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2020 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com