রাজশাহীতে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত ২৫ হাজার মানুষ

ফসল নষ্ট ৪৭ হাজার হেক্টর
রাজশাহীতে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত ২৫ হাজার মানুষ
প্রকাশ : ০৬ সেপ্টেম্বর ২০১৬, ১০:৩১:২৯
রাজশাহীতে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত ২৫ হাজার মানুষ
রাজশাহী ব্যুরো
প্রিন্ট অ-অ+
ফারাক্কার সব গেট খুলে দেয়ায় গেল সপ্তাহে রাজশাহী অঞ্চলে যে বন্যা দেখা দেয় তাতে ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের সংখ্যা প্রায় ২৫ হাজার। আর বন্যায় ক্ষতি হয়েছে প্রায় ৪৭ হাজার হেক্টর জমির ফসল। জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তার কার্যালয় এবং জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।
 
বন্যা পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতির পর ত্রাণ সহায়তা পেতে গত রবিবার জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে ক্ষয়ক্ষতির একটি হিসেব দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ে এবং জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর থেকে ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের একটি তালিকা কৃষি মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে।
 
জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তার ওই হিসেব অনুযায়ী, বন্যায় রাজশাহীর তিন উপজেলার ৩৫টি গ্রামের মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। পাঁচ ইউনিয়নে ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের সংখ্যা ২৫ হাজার ৩২০ জন । এর মধ্যে জেলার পবা উপজেলায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন ছয় হাজার ৩০ জন। এছাড়া বাঘায় ১৫ হাজার এবং গোদাগাড়ীতে চার হাজার ২৯০ জন মানুষ বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন।
 
পবা উপজেলার ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে নগদ এক লাখ ৫২ হাজার টাকা, ২৪ দশমিক ১২০ মেট্রিক টন চাল এবং ৩৫০ প্যাকেট শুকনো খাবার বিতরণ করা হয়েছে। বাঘা উপজেলায় আট লাখ এক হাজার নগদ টাকা, ৪০ দশমিক ৭৫০ মেট্রিক টন চাল ও ১৩৬ প্যাকেট শুকনো খাবার বিতরণ করা হয়েছে। এছাড়া গোদাগাড়ী উপজেলায় এক লাখ ৮৮ হাজার নগদ টাকা ও ১৭ দশমিক ৮৪০ মেট্রিক টন চাল বিতরণ করা হয়েছে। এই তিন উপজেলায় এখনও ত্রাণের চাহিদা রয়েছে ১০০ মেট্রিক টন চাল ও ১০ লাখ টাকা।
 
এ ব্যাপারে জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা মো. আলাউদ্দিন বলেন, বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের জন্য আরও ত্রাণ প্রয়োজন। এ জন্য ক্ষতিগ্রস্তদের একটি তালিকা আমরা মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়েছি। আশা করছি খুব শীঘ্রই বরাদ্দ পাওয়া যাবে। বরাদ্দ পেলেই সেসব বিতরণ করা হবে। আর বন্যায় ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ আর্থিক মূল্যে কত, তার হিসেব দেয়ার জন্য তিন উপজেলার নির্বাহী অফিসারদের বলা হয়েছে।
 
এদিকে বন্যায় ক্ষতি হওয়া ফসলি জমির একটি প্রাথমিক প্রতিবেদন করেছে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর। এতে বলা হয়েছে, রাজশাহীর এই তিন উপজেলায় মোট ৪৬ হাজার ৮৫১ হেক্টর জমির ফসলের ক্ষতি হয়েছে। এর মধ্যে এক হাজার ২০ হেক্টর জমির ফসল পুরোপুরি পানিতে নিমজ্জিত হয়েছে।
 
প্রতিবেদন অনুযায়ী, পবা উপজেলায় আট হাজার ৯৩৫ হেক্টর রোপা আমন, ৫৭৫ হেক্টর আউশ, ৭০ হেক্টর মাসকলাই, ৫২০ হেক্টর মরিচ এবং ৩৭৪ হেক্টর সবজি বন্যার পানিতে নষ্ট হয়েছে। গোদাগাড়ী উপজেলায় ২৫ হাজার ৩০০ হেক্টর রোপা আমন, নয় হাজার হেক্টর আউশ এবং ১৩৭ হেক্টর সবজি বন্যার পানিতে নষ্ট হয়েছে। আর বাঘা উপজেলায় রোপা আমন নষ্ট হয়েছে এক হাজার ৪০ হেক্টর, মাসকলাই ৫০ হেক্টর, মরিচ ৭০ হেক্টর, সবজি ৪৩০ হেক্টর এবং হলুদ ৩৫০ হেক্টর।
 
জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপপরিচালক দেব দুলাল ঢালি বলেন, বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের এখনও পর্যন্ত কোনো সরকারি সহায়তা করা যায়নি। তবে ক্ষতিগ্রস্তদের একটি তালিকা করে মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। সেখান থেকে কোনো বরাদ্দ আসলে তা কৃষকদের মাঝে বিতরণ করা হবে।
 
ভারতের বিহার রাজ্যে বন্যা দেখা দেয়ায় সম্প্রতি ফারাক্কা বাঁধের সবগুলো গেট খুলে দেয় পশ্চিমবঙ্গ সরকার। এতে হু হু করে বাড়তে থাকে পদ্মার পানি। গত ২৮ আগস্ট রাজশাহী অঞ্চলে পদ্মার পানি ১৮ দশমিক ৪৬ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়। আর মাত্র ৪ সেন্টিমিটার পানি বৃদ্ধি পেলেই তা বিপদসীমা অতিক্রম করতো। তবে পরদিন থেকে পদ্মার পানি কমতে শুরু করে। এর ফলে পদ্মার পানি আর বিপদসীমা অতিক্রম করেনি।
 
বিবার্তা/রিমন/জিয়া 
 
সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (২য় তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১১৯২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2021 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com